টার্কি খামারের নেই কোন নিতিমালা

টার্কি খামারের নেই কোন নিতিমালা পুনম শাহরীয়ার ঋতু, স্টাফ রিপোর্টার:  টার্কি খামার, একটি সম্ভাবনাময় খামার; সঠিক নীতিমালায় একে ধরে রাখতে পারলে পরিণত হতে পারে একট শিল্পে।

পোলট্রির অন্তর্গত হলেও বিশ্বব্যাপী টার্কিকে আলাদাভাবে গণ্য করা হয়।

টার্কি আকারে বড়, খাওয়ার উপযোগী একটি টার্কির ওজন প্রায় ৬-৭ কেজি এবং বাচ্চা উৎপাদনের উদ্দেশ্যে পালিত টার্কির ওজন প্রায় ১০-১১ কেজি হয়ে থাকে। ব্রয়লার মাংসের চেয়ে একটু শক্ত এবং সুস্বাদু মাংস হিসেবে ভোক্তার খাদ্যাভ্যাসে যুক্ত হচ্ছে টার্কির মাংস। বৃদ্ধি পাচ্ছে ভোক্তার গ্রহণমাত্রা। বর্তমানে দামি খাবার হিসেবে অভিজাত ভোক্তা টার্কির মাংস গ্রহণে আগ্রহী হচ্ছে।

অল্প কয়েকটি টার্কির বাচ্চা দিয়ে এবং স্বল্প জায়গা নিয়ে এদের পালন করা যায় বলে অনেকেই এই খামারে উৎসাহী হচ্ছে এবং বাড়ছে খামারির সংখ্যা। এ যেন নব্বইয়ের দশকের পোলট্রিশিল্প, মাত্র রূপ নিচ্ছিল সম্ভাবনাময় শিল্পের। সঠিক দিকনির্দেশনা, দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার অভাব ছিল বলেই আজও পোলট্রিশিল্প চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে, যদিও বিনিয়োগের আকারে বৃদ্ধি পেয়েছে কয়েক গুণ, খামারি ধুঁকছেন বছরের পর বছর।

আজকের টার্কি পালনকে শুধু একটি খামার নয়, বরং ভবিষ্যতের একটি সম্ভাবনাময় শিল্প হিসেবে বিবেচনা করে এখনই স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ না করলে টার্কির ভবিষ্যৎও হবে পোলট্রিশিল্পের মতো, হয়তোবা তার চেয়ে খারাপ। কারণ, এ দেশের ভোক্তার খাদ্যাভ্যাস পুষ্টিনির্ভর নয়, বরং স্বাদনির্ভর। টার্কি মাংসের স্বাদ সাধারণ ভোক্তার কাছে একেবারেই নতুন। ভোক্তার খাদ্যতালিকায় টার্কির মাংস সংযোজনের জন্য তাকে উদ্বুদ্ধ না করে শুধু খামারের সংখ্যা বৃদ্ধি করলে অর্থনীতির স্বাভাবিক নিয়মে চাহিদার চেয়ে সরবরাহ বেড়ে যাবে, খামারি উৎপাদন খরচের কমে উৎপাদিত টার্কির মাংস বাজারে অথবা মধ্যস্বত্বভোগীদের কাছে বিক্রয় করতে বাধ্য হবেন, ফলাফল পথে বসে যাবেন খামারি, যেমনটা হয়েছে আজকের পোলট্রিশিল্পের।

ইতিমধ্যেই এমন অবস্থার অবতারণা হয়েছে। খামারি তঁার উৎপাদিত টার্কি মাংসের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন, শুরু হয়েছে মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য! ঢাকায় প্রতি কেজি মাংস ৫০০ টাকা হলেও দেশের বিভিন্ন স্থানে এর মূল্য প্রতি কেজি ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। অর্থাৎ খামারির মাথায় কাঁঠাল ভেঙে খাচ্ছে একশ্রেণির তথাকথিত বাজারজাতকারী। বাংলাদেশের খামারিদের বড় একটি সমস্যা হচ্ছে তাঁরা কোনো প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ না নিয়ে অন্য সফল খামারিদের অনুসরণ করেন এবং তাঁদের পরামর্শে খামার পরিচালনা করে থাকেন। ফলে বেশির ভাগ সময় খামারি লাভজনক খামার পরিচালনায় ব্যর্থ হন।

এই সুযোগে কিছু কিছু স্থানে গড়ে উঠছে তথাকথিত ‘টার্কি পালন প্রশিক্ষণকেন্দ্র’, যাদের অনেকের আইনগত অবস্থান প্রশ্নবিদ্ধ। অনেকে আবার বই লিখেছেন টার্কি পালনের ওপর, শুধু নিজের অভিজ্ঞতা থেকে, কোনো কারিগরি জ্ঞান না থাকলেও! লেখককে প্রশ্ন করলে তিনি দিতে পারেন না বইয়ে লেখা নানা রোগ, রোগের চিকিৎসা সম্পর্কে দেওয়া নিজের ওষুধের নাম, এ দেশে প্রাপ্যতা ইত্যাদি, যা খামারির জন্য জরুরি। ভুল তথ্যে ভরা বই খামারিকে ঠেলে দিচ্ছে সর্বনাশের মহাসাগরে! ঘরে ঘরে পালন করা হচ্ছে টার্কি, এতে সৃষ্টি হতে পারে বিপজ্জনক পাখি থেকে মানুষের শরীরে সংক্রমিত হওয়া রোগের ঝুঁকি।

প্রতিটি উপজেলায় উপস্থিত প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের বিশেষজ্ঞ ভেটেরিনারিয়ান, এভিয়ান ভেটেরিনারিয়ান এবং পোলট্রি বিশেষজ্ঞ; তাহলে কেন প্রয়োজন এ ধরনের বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান? টার্কিকে একটি শিল্প হিসেবে দেখতে হলে এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরকে, অবশ্যই বেসরকারি সংশ্লিষ্ট সবাইকে সঙ্গে নিয়ে। টার্কির জন্য এখনই প্রয়োজন একটি নীতিমালা, যাতে থাকবে স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা। খামার স্থাপন করার আগেই সেগুলোকে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে নথিভুক্ত করতে হবে এবং পূর্বানুমতি নিতে হবে, যাতে একটি সঠিক তথ্যভান্ডার পাওয়া যায় অধিদপ্তর থেকে এবং ভবিষ্যতে হুমকির মুখে না পড়ে এই শিল্প। খামার স্থাপিত হওয়ার পরে তা নথিভুক্ত করার প্রক্রিয়া শুরু করলে সৃষ্টি হয় জটিলতা।

অনেক টার্কি খামারির কারিগরি জ্ঞানের অভাব আছে নিঃসন্দেহে, যেমন প্রচলিত পদ্ধতিতে খাদ্য হিসেবে শুধু শাকসবজি গুরুত্ব পাচ্ছে, অথচ বিশ্বব্যাপী নিবিড় পদ্ধতিতে টার্কি পালনে দানাদার সুষম খাদ্য ব্যবহার করা হয়, যাতে শুধু সঠিক মাংস উৎপাদন নয় বরং টার্কির ফার্টিলিটি কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে উন্নীত হয়, ফলে বাচ্চা উৎপাদন অব্যাহত থাকে। আশির দশকে পোলট্রিশিল্প শুরু হলেও আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় পূর্ণাঙ্গ পোলট্রি নীতিমালা পেতে এই শিল্পকে পার করতে হয়েছিল প্রায় এক দশক! টার্কির নীতিমালায় যেন এ অবস্থা না হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে।

মনে রাখতে হবে অসহায় খামারি লাভের আশায় দৌড়ে বেড়াচ্ছেন, আর কিছু মানুষ তঁাদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে টু-পাইস কামাচ্ছে। বড় বেশি ক্ষতি হয়ে যাওয়ার আগে এখনই সময় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের পদক্ষেপ নেওয়ার। খামারিদের সঠিক প্রশিক্ষণ দেওয়া, বাজারজাতকরণে সঠিক পথ দেখানোর উদ্দেশ্যে শুধু টার্কির জন্য একটি সমন্বিত কার্যক্রম নেওয়া সময়ের দাবি।

৩১/১২/০১৭

Leave a Reply